ভৃতীস্ম খণ্ড

ক্চনাকাল ১৯১৭ মার্চ-_অক্টোবর

কিলার বিশাল এ-৬৪ কলেজ স্ট্রীট মার্কেট, কি-১২

প্রথম প্রকাশ ১৭ই মে, ১৯৭3

প্রকাশক মজহারুল ইপলাম নবজাতক প্রকাশন এ-৬৪ কলেজ ড্রাট মােট কলিকাতা-১২

মুত্রক

স্থধীর পাল

দরম্বতী প্রিন্টিং ওয়ার্কল ১১৪/১এ, রাজ রামমোহন সরণি কলিকাতা-৯

প্রচ্ছদশিল্পী খালেদ চৌধুরী

ভুনিয়ার শ্রমিক, এক হও!

সম্পাদকমণ্ডলী

পীবৃষ দাশগুধ বল্পতরু সেনগুধ প্রভাস মিংহ

শঙ্কর দাশগুপ্ত সকরশন রায় চৌধুরী

প্রকাশকের নিবেদন

স্তািন রচনাবলীর দ্বিতীয় খণ্ড প্রকাশিত হওয়ার প্রায় তিন মাষ পর তৃতীয় খণ্ডটি প্রকাশিত হল। প্রথম হু”টি খ্ড প্রকাশের সময়কালের ব্যবধানের চাইতে দ্বিতীয় তৃতীয় খণ্ড প্রকাশের সময়কালের ব্যবধান অনেক কমিয়ে দেওয়৷ গেছে। পাঠকবর্গের ধৈর্যচ্যুতির মাত্রাও হাস পেয়েছে নিঃন্দেহে। অবশ্তই এতে আহ্মদন্তষ্টির নান্তম অবকাশ নেই কারণ অন্তত: ছু'মাস অস্তর রচন।- বলীর খগ্ুগুলি প্রকাশিত না করতে পারলে পাঠক প্রকাশক উভয় পক্ষই অস্বস্তিতে পড়বেন। আমরা আশা প্রকাশ করি যে রচনাবলীর পরবর্তী খগ্ডগুলি যত শীন্র সম্ভব পাঠকদের হাতে আমরা! পৌছিয়ে দিতে পারব কিন্তু সরকারের কল্যাণে বছুমুখি সংকটের সাথে যেভাবে ব্যাপক হারে বিদ্যুৎ সংকট চলছে তাতে আমাদের আশ! কতদুর সার্থক হবে বলতে গারি না

পরিশেষে নিবেদন যে আগের চাইতে কিছুটা হ্থাস মূল্যে বর্তমান খণ্ডের কাগজ সংগ্রহ কর! সম্ভব হওয়ায় আমর! এই খণ্ড দ্বিতীয় খণ্ড অপেক্ষা একটাকা কম মূল্যে গ্রাহকদের কাছে দিতে পারছি।

১৭ই মে, ১৯৭৪ মজহারুল ইসলাম নবজাতক প্রকাশন কলিকাতা

বাংল। সংস্করণের ভূমিকা

'্তালিন রচনাবলীর' এই তৃতীয় খণ্ডে সন্গিবেশিত হয়েছে ১৯১৭ সালের মার্চ থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে গকাশিত তার লেখাগুলি।

১৯১৭ সালের ফেব্রুয়ারির বুর্জোয়া বিপ্লব এবং অক্টো বরের (নতুন পঞ্রিকা অনুযায়ী, নতেম্বয়ের ) প্রলেতারীয় বিপ্লব-_এই ছুই বিপ্লবের মধ্যকালবতাঁ লেখাগুলি এই খণ্ডে অন্ততূক্ত হওয়ায় এর গুরুত্ব শ্বভাবত;ই অমাধারণ।

বর্তমান থণ্ডে নংকলিত রচনাগুলিকে মোটামুটি তিন ভাগে ভাগ করা যায়। প্রথম ভাগে গড়ে জুন-জুলাইয়ের বিক্ষোভগুলিতে এবং পেত্রোগ্রাদ জিলা শহর ডুমা- সমূহের নির্বাচনগুলিতে জনগণের উপরে বলশেভিক পার্টির নেতৃত্ব সংক্রান্ত বিভিন্ন রচন! (যেমন, 'পেজ্ঞোগ্রাদের সমস্ত মহনতী মাহুষ, সমস্ত শ্রমিক এবং ঠসনিকদের প্রতি”, বিচ্ছিন্ন বিক্ষোভের বিরুদ্ধে”, 'পৌর নির্বাচনী গরচারা- ভিযান”, “কি ঘটেছে? জোট বাধো” নির্বাচনের দিন ইত্যাদি )।

দ্বিতীয় ভাগে পড়ে কমিলভ-এর প্রতিবিপ্রবী অপ- প্রয়াসকে প্রতিহত পযুদস্ত করার সংগ্রাম সংক্রান্ত রচনাগুলি (যেমন, “আমরা দাবি করি!” চক্রান্ত চলছে?, “কনিলভ বিদেশীদের ষড়যন্ত্র ইত্যাদি )।

আর তৃতীয় ভাগে পড়ে সেপ্টেঘঘর-অক্টোবরের সশস্ত্র অভ্যুতানের গ্রত)ক্ষ প্রস্ততি সংক্রান্ত রচনাগুলি (যেমন, “গণতান্ত্রিক সম্মেলন, ছছিটি মত', “আপনারা অকারণে অপেক্ষা করবেন !”, ধপ্রতিবিপ্রব শক্তি সংহত করছে-_- প্রতিরোধের জন্ত প্রস্তত ছোন।', "শৃংখল তৈরী হচ্ছে' ইত্যাদি)।

ছাড়াও আরও কয়েকটি রচনা এই খণ্ডে স্থান পেয়েছে, যেগুলোর আলোচ্য বিষয় হচ্ছে জনগণকে সমবেত করার শামিয়ান। থেকে সোভিয়েতগুলিকে কীভাবে বিজ্রোছের হাতিয়ারে রূপান্তরিত কর! যায়__এই প্রশ্নটি (যেমন, “সোভিয়েতের হাতে সব ক্ষমতা চাই! “সোভিয়েতের হাতে ক্ষমতা”, “বিপ্লবের প্রতারক দল”, “আমাদের কী প্রয়োজন? ইত্যাদি )।

পাঠকবন্ধুদের সবিনয় অন্থরোধ জানাব_এই খণ্ডের রচনাগুলি পড়ার আগে তারা যেন আরেকবার “সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিস্ট ( বলশেভিক) পার্টির ইতিহাস'-এর ষষ্ঠ সপ্তম অধ্যায় ছু'টি পড়ে নেন।

অভিনন্দন |

১৭ই মে, ১৯৪ সম্পাদকমগ্ডলী

হৃচীপত্র বিষয় শ্রমিক সৈনিকদের প্রতিনিধিবৃন্দের সোভিয়েত যুদ্ধ মন্ত্রিদপ্তরের জন্য তৎপরতা রুশ-বিপ্রবের জয়লাভের শর্তাবলী জাতিগত প্রতিবন্ধসমূহের বিলোপ হয় এটা-_নয় ওটা! যুক্তরাষ্ট্রবাদ-এর বিরুদ্ধে ছুইটি প্রস্তাব কৃষকের হাতে জমি মে দিবস অস্থায়ী সরকার ম্যারিনস্কি প্রাসাদের সম্মেলন রুশ সোশ্যাল ডিমোক্র্যাটিক লেবার ( বলশেভিক ) পার্টির সঞ্চম ( এপ্রিল ) সম্মেলন (২৪-২৯শে এপ্রিল, ১৯১৭ ) ১। বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে কমরেড লেনিনের প্রস্তাবের সমর্থনে বক্তৃতা (২৪শে এপ্রিল ) ২। জাতিগত প্রশ্ন সম্পর্কে প্রতিব্দেন (২৯শে এপ্রিল ) ". ৩। জাতিগত প্রপ্বের ওপর আলোচনার উত্তর ( ২৯শে রী ) বিপ্রব থেকে পিছিয়ে পড়া ুদ্ধের প্রশ্ন জমির প্রশ্ন সম্মেলন থেকে আমরা কি আশা করেছিলাম ? পৌর নির্বাচনী গ্রচারাভিযান “লোকায়ত স্বাধীনতার পার্ট রাশিয়ান নোশ্যাল ডিমেরক্র্যাটিক জেরার ( বলশেভিক ) পাট দেশরক্ষাবানী জোট

পৃষ্ঠ। ১৭ ১৯ ২৬ ৩০

৩৪

88 ৪৬ ৪৯ ৫১

৫৯ €&৯ ঙ৫

ভর ণও ৭৩ ১, ণগ ৭৮ ৮৬

বিষয়

“নির্দল' গোষীসমূহ গতকাল আজ (বিপ্লবের সংকট ) বিচ্ছিন্ন বিক্ষোভের বিরুদ্ধে পেত্রোগ্রাদ পৌর নির্বাচনগুলির ফলাফল পেআ্রোগ্রাদের সমস্ত মেহনতী মানুষ, সমস্ত শ্রমিক এঘং টনি কদের প্রতি বিক্ষোভ-মিছিলে একট! শোভাযাত্রা নয়, একট! বিক্ষোভ-মিছিল অস্থায়ী সরকারের প্রতি অনাস্থা আপোষ মীমাংসা নীতির দেউলিয়! রূপ জোট বাধে! আর. এস. ডি. এল. পি (বিলশেভিক )-র পেত্রোগ্রাদ সংগঠনের জী দন্মেলনে প্রদত্ত ভাষণসমূহ ( ১৬-২*শে জুলাই, ১৯১৭) ১। জুলাই-এর ঘটনাবলী সম্পর্কে কেন্দ্রীয় কমিটির রিপোর্ট (১৬ই জুলাই ) ২। সাম্প্রতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে রিপোর্ট (১৬ই টন ৩। লিখিত প্রশ্নের উত্তর (১৬ই জুলাই ) ৪। আলোচনার উত্তরে (১৬৯ জুলাই ) কি ঘটেছে? প্রতিবিপ্রবের জয়লাভ ক্যাডেটদের জয়লাভ পেআ্রোগ্রাদের সকল শ্রমজীবী, কল শ্রমিক এবং সৈনিকদের উদ্দেতে ছুটি সম্মেলন | নতুন সরকার রঃ সংবিধান-পরিষদের নির্বাচন

রুশ সোশ্যাল ডিমোক্র্যাটিক লেবার ( বলশেভিক ) পার্টির কংগ্রেমে

প্রদত্ত বস্তৃতাবলী (২৬শে জুলাই-ওরা| আগস্ট, ১৯১৭) *.. ১। কেন্দ্রীয় কমিটির রিপোর্ট (২৭শে জুলাই )

২। আলোচনার জবাবে (২৭শে জুলাই )

ও। মাডনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে রিপোর্ট (৩শে দাই)

১১৪

১৭২৪ ১২১ ১২৮ ১৩১ ১৩৪

১৩৪ ১৪৫ ১৪৬ ১৪৮

১৫৪

১৬৫ ১৬৭

৪। রাজনৈতিক পরিস্থিতির রিপোর্ট সম্পর্কে প্রশ্নের জবাবে (৩১শে জুলাই) | আলোচনার জবাবে ( ৩১শে জুলাই ) ৬। রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে" প্রস্তাবে নং ধার! প্রদঙ্গে প্রিয়োবাঝেনৃস্কির জবাবে (৩রা আগস্ট ) পুঁজিপতিরা কি চায়? কে ক্ষমতা নিয়ন্ত্রণ করছে? কে রাশিয়ায় সর্বনাশ ডেকে আনছে? কে রাশিয়ার প্রতি বিশ্বামঘা তকতা করছে? মস্কো-সম্মেলনের বিরুদ্ধে স্টকহোম-এর ব্যাপারে আরও মস্কোসন্মেলন কোন্‌ দিকে? পেত্রো গ্রাদ থেকে পলায়ন লশ্মেলন থেকে এক দীর্ঘস্থায়ী পালণামেণ্টে' কারা তারা? তারা কী চান? মস্কোর কথন্বর গ্রতিবিপ্রব এবং রুশ জাতিসমূহ ছুটি পথ মক্কো সম্মেলনের ফলশ্রুতি রণাঙ্গনে আমাদের পরাজয় সম্পকে সত্য কথা রণাঙ্গনে জুলাই পরাজয়ের কারণগুলি রণাজনে পরাজয়ের জন্ত কে প্রকৃত দায়ী? আমেরিকান বিলিয়ন নির্বাচনের দিন গ্ররোচনার অধ্যায় £সোশ্ত[ লিষ্ট রিভলিউশনারি' পার্টিতে শ্রমবিভাগ পীত মৈত্রী হয় এটি, নয় অপরটি আমর! দাবি করি!

১৪৪ ১৪৪ ১৯৫ ১৯৬ ১৪৯৭ ১৪৮৮ ১৯৯ ২৪০৩ ২৪৭ ২১৬ ২১৪ ১৪৫৪ ১৭ ২৩৪ ২৩৪ ২৩৬ ২৩৪ ৪২ ২৪৬

বিষয় ষড়যন্ত্র চলছে ওর কারা? ওরা কিসের ভরসা করছে? ষড়যন্ত্র এখনো চলছে ". বুর্জোয়াদের দজে আপোষের বিরুদ্ধে সংকট এবং ডাইরেক্টরি ওর] ওদের পথ থেকে হটবে না ক্যাডেটদের সঙ্গে বিচ্ছেদ দ্বিতীয় তরঙ্গ কনিলভ বিদেশীদেব যডযন্ত্ গণতান্ত্রিক সম্মেলন দুটি মত সোভিয়েতের হাতে সব ক্ষমত। চাই ! বিপ্রবী ফ্রণ্ট শৃংখল তৈরী হচ্ছে বুর্জোয়া একনায়কতম্ত্রের সরকার

নান! মন্তব্য

রেল ধর্মঘট গণতন্ত্রী দেউলিয়ারা

রুশীয় কষকসমাজ জড়বুদ্ধি মানুষদের পার্টি শ্রমিকদের বিরুদ্ধে প্রচারাভিযান আপনারা অকারণে অপেক্ষা করবেন

বিবিধ মন্তব্য 'অস্থিরচিতদের' পার্টি রুশ সৈনিকদল ষড়যন্ত্রকারীরা ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত একটি কাগুজে মোর্চা সন্তব্যাবলী গ্রামাঞ্চলে অনাছার কল-কারথানাগ্ডলিত্তে অনাছার আত্মসংশোধন

পৃষ্টা ২৫৩ ২৫৩ ২৫১ ৫২ ৫৪ ২৫৫ ২৫৮ ২৬০ ২৬৪ ২৭০

২৭৮ ২৮১ ২৮৪ ২৮৮

৪৯২

৯৫ ২৪৫ ২৪৯৩৬ খটি৪

৩০২

৩৪০৪

৩৬ ৩৬৭ ৩৩৪ ঙ৩৪ ১৯

৩১২

বিষয়

বিপ্রবের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র তাঁরা কারা? ওদের লক্ষ্য ও'দের পদ্ধতি একটি সাম্রাজ্যবাদী বুর্জোয়াদের একনায়কতন্র প্রথম দিদ্ধাস্ত দ্বিতীয় নিদ্ধান্ত তৃতীয় মিদ্ধান্ত দুটি প্রশ্ন সংবিধান-সভ1 বিনষ্ট করছে কে? প্রতিবিপ্রব শক্তি সংহতি করছে-প্রতিরোধের জন্ত প্রস্তুত হোন ! প্রাকপালণমেন্ট কার প্রয়োজনে? : সোভিয়েতের হাতে ক্ষমতা ৃষ্টতার সমীক্ষা বিপ্রবের প্রতারক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় ভাষণ (১৬ই অক্টোবর, ১৯১৭) বাশানের বলিষ্ঠ বুষগুলি আমাকে ঘিরে ফেলেছে, আমাদের কী প্রয়োজন? টীকা

৬৩২৬

৩২৮

শমিক সৈনিকদের প্রতিনিধিবৃন্দের সোভিয়েত

রুশ-বিগ্রবের রথ অড়িৎগতিতে এগিয়ে চলেছে বিপ্লবী জঙ্গীদের বাহিনীগুলি স্ধত্র গড়ে উঠছে ছড়িয়ে পড়ছে। পুরানো ক্ষমতার স্ত্ত গুলি আমূল কেঁপে উঠছে এবং ভেঙে পড়ছে পেত্রোগ্রাদ সব সময়েই সামনের সারতে থাকে, এখনো আছে। বিশাল বিশাল প্রদেশগুলি তার পেছনে পেছনে, কখনো কখনো হোচট খাওয়া সত্বেও এগিয়েই চলছে

পুরানো ক্ষমতার শক্তিগুলি ভেঙে পড়ছে, কিন্তু তারা এখনো বিধ্বস্ত হয়নি। তার৷ শুধু মাথা নিচু করে রয়েছে, অপেক্ষা করছে সেই অঙন্গকূল মুহূর্তের জন্ত যখন তার! মাথা উচু করে সবেগে স্বাধীন রাশিয়ার উপর ঝাপিয়ে পড়বে চারিদিকে তাকালে দেখতে পাওয়া যাবে, অন্ধকারের শক্তিগুলি তাদের কুটিল কাজকর্ম সমানে চালিয়ে যাচ্ছে |...

অঞ্জিত অধিকারসমূহকে অবশুই রক্ষা করতে হবে যাতে পুরানো শক্তিগুলিকে সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করা যায়, এবং প্রদেশগুলির সঙ্গে একযোগে রুশ- বিপ্লবকে আরও এগিয়ে নেওয়া যায়-__এটাই হবে রাজধানীর শ্রমিকশ্রেণীর আস্ত করণীয় কাজ।

কিন্ত কিভাবে এট করতে হবে?

এটা করতে হুলে কী চাই?

পুরানে। ক্ষমতাকে চুর্ণ করবার পক্ষে বিদ্রোহী শ্রমিক পৈনিকদের মধ্যে একট। সাময়িক ঠমত্রীই ছিল যথেই্ট কেননা! এটা স্বতঃপিদ্ধ যে, রুশ-বিপ্লবের শক্তি অবস্থান করছে শ্রমিক সৈগ্ের ইউনিকর্ম পরিহিত কুষ কদের মধ্যেকার মৈত্রীর ভিতর।

কিন্ত অজিত অধিকার রুক্ষ! করা এবং বিপ্লবকে আরও বিকশিত করার জন্ত শ্রমিক সৈম্/দের মধ্যে কেবল সাময়িক টমন্ীই যথেষ্ট নয়।

এরজন্য প্রয়োজন, এই টৈত্রীকে সচেতন নিরাপদ করা, তাকে দীর্ঘস্থায়ী স্থন্থিত করা, এত পর্যাপ্তরূপে তাকে স্থস্থিত করতে হবে যাতে তা প্রতি- বিপ্রবীদের প্ররোচনামূলক আক্রমণসমৃছ প্রতিরোধ করতে পারে। কেননা এটা সকলের কাছেই স্ুম্পষ্ট যে, রুশ-বিপ্রবের চুড়ান্ত বিজয়ের গ্যারাটি হচ্ছে

১৭

স্ভালিন (৩য়)--২

বিপ্লবী শ্রমিক বিপ্রবী সৈনিকদের পারম্পরিক মন্ত্রীর ংহতিদাধন।

এই ধমত্রীসাধনের যন্ত্র হল শ্রমিক সৈনিকদের প্রতিনিধিবৃন্দের সোভিয়েত

এবং যত বেশি ঘনিষ্ঠভাবে এই সোভিয়েতগুলি পরস্পরের সঙ্গে সংযুক্ত হবে, যত বেশি বলিষ্ঠভাবে তারা হবে সংগঠিত, তাদের মাধ্যমে অভিব্যক্ত বিপ্লবী জনগণের বৈপ্লবিক ক্ষমতা হবে তত বেশি কার্ধকর এবং প্রতিবিপ্রবীদের বিরুদ্ধে গ্যারার্টিলমৃহ হবে তত বেশি দুর্তেছ্য

বিগ্রবী সোশ্ঠাল ডিমোক্র্যাটদের আবশ্টিক কর্তবা হবে এই সোভিয়েত- গুলিকে হৃসংহত করা, সর্বত্র সেগুলির বিস্তার সাধন করা এবং জনগণের বৈপ্লবিক ক্ষমতার মুখপাত্রস্বরূপ শ্রমিক সনিকদের প্রতিনিধিবৃন্দের একটি কেন্দ্রীয় সোডিয়েতের অধীনে সেগুলিকে সমবেত করা

শ্রমি কগণ, নিজেদের মধ্যে বাদ-বিসংবাদ মিটিয়ে রুশ সোশাল ডিমো- ক্র্যাটিক লেবার পার্টির চারিপাশে জড়ো হোন !

কষকগণ, কক ইউনিয়নে সংগঠিত হয়ে রুশ-বিপ্লবের নেতা বিপ্লবী শ্রমিক শ্রেণীর চারিপাশে সমবেত হোন !

সৈম্তগণ, নিজেদের ইউনিয়নে সংগঠিত হয়ে রাশিয়ার বিপ্লবী সৈম্ভবাহিনীর একমাত্র প্রকৃত নেতা রুশ জনগণের চারিপাশে সমবেত হোন !

শ্রমিক, রুষক টসন্থগণ, রাশিয়ার বৈপ্লবিক শক্তিসমূছের মমতা ক্ষমতার যন্ত্স্বরূপ শ্রমিক সৈনিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েতে সর্বত্র এক্যবদ্ধ হোন !

এর মাঝেই নিহিত রয়েছে পুরানে। রাশিয়ার অন্ধকার শক্তিগুলির বিরুদ্ধে পরিপূর্ণ বিজয়ের গ্যারাটি।

এর মাঝেই গ্যারাট্ি রয়েছে যে, রুশ জনগণের মৌল দাবিসমৃহ অজিত হবে। সে দাবিগুলি হচ্ছে: কৃষকদের জন্য জমি, শ্রমিকদের জন্য শ্রমের নিরাপত্তা এবং রাশিয়ার সমস্ত নাগরিকদের জন্য একটি গণতান্ত্রিক সাধারণতন্ত্র।

প্রাভদা, সংখ্যা ১৪ই মার্চ, ১৯১৭ স্বাক্ষর £ কে. স্তালিন

১৮

যুদ্ধ

সেদিন জেনারেল কনিলভ পেন্রো গ্রাদের শ্রমিক মৈনিক প্রতিনিধিদের 'সোভিয়েতকে জানালেন যে, জাধানরা রাশিয়ার বিরুদ্ধে এক আক্রমণের পরিকল্পনা করছে।

রদ্‌জিয়াংকো এবং গুচকভ এই স্থযোগ কাজে লাগিয়ে সৈগ্রবাহিনী জনগণের নিকট আবেদন জানাল, যুদ্ধে শেষ পযন্ত লড়বার জন্য তারা যেন গুস্তত হন।

এবং বুজৌয়া গত্র-শত্রিকায় এই বিপদ-সংকেত ধ্বনিত হল: “শ্বাধানতা বিপন্ন যুদ্ধ দীঘস্থায়া হোক! তাছাড়া, রাশিয়ার বিপ্লবী গণতন্ত্রের একটি অংশ এই ধিপদ-সংকেতের ঘোষণায় তাদের কঠ মেলাল।...

এই বিপদ-সংকেত গ্রচারকারীদের কথা শুনলে মনে হতে পারে রাশিয়ার আজকের পরিস্থিতি ১৭৯২ সালের ফ্রান্সের পরিস্থিতির সমরূপ--তখন ফ্রান্সে পুরানো শাসনবাবস্থাকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করার উদ্দেশ্তে মধ্য পূর্ব ইউরোপের প্রতিক্রিযাশীল রাজারা সাধারণতন্ত্র ফ্রান্সের বিরুদ্ধে জোট বেঁধেছিল।

এবং যদি রাশিয়ার বহিঃপরিস্থিতি বাস্তবিকই ১৭৯২ সালের ফ্রান্সের পরিস্থিতির অনুরূপ হয়ে থাকে, যদি আমর! সত্যসত্যই রাশিগায় পুরানো শাসনব্যবস্থা পুনঃস্থাপন করার নির্দিষ্ট উদ্দেশ্তমাধনে নিরত প্রতিধিপ্রবী রাজাদের একটি বিশেষভাবে নিদিষ্ট কোয়ালিশনের সম্মুখীন হয়ে থাকি, তাহলে কোন সন্দেহই থাকতে পারে না যে সোশ্তাল ডিমোক্র্যাটরা, সেই সময়কালের ফরাসী বিপ্লবীদের মতো» শ্বাধীনতার প্রতিরক্ষায় এককাট্র। হযে উঠে দাড়াবে কেননা এটা স্বতঃপিদ্ধ যে, যে-কোন দিক থেকেই এগিয়ে আসক না কেন সমস্ত প্রতিবিগ্রবী আক্রমণের বিকদদ্ধ রক্কের মূল অঙ্জিত স্বাধীনতাকে নিশ্চিতরূপে অন্ত্রবলে রক্ষ। করতে হবে

কিন্তু ঘটন! কি সত্যসত্যই সেবূপ ?

১৭৯২ সালের যুদ্ধ ছিল একটি বংশগত যুদ্ধ; এই যুদ্ধে সামস্ততান্ত্রিক রাজারা সাধারণতন্ত্রী ফ্রান্সের বিরুদ্ধে লদ়্াই করেছিল, কেনন| তারা সেই দেশের প্রচণ্ড বৈপ্লবিক দাবানলে- ভীতমন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছিল। এই যুদ্ধের লক্ষ্য ছিন

১৪৯

সেই প্রচণ্ড দাবানলকে নির্বাপিত করা, ফ্রান্সে পুরানো ব্যবস্থা পুন:স্থাপিত করা' এবং এইভাবে আতংকিত রাজাদের নিজেদের দেশে সংক্রামক বৈপ্লবিক প্রভাব বিস্তারের বিরুদ্ধে তাদের গ্যারান্টি দেওয়া এই কারণেই ফরাসী বিপ্লবীবা রাজাদের সৈন্তবাহিনীগুলির বিরুদ্ধে এত বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করেছিল।

কিন্তু বর্তমান যুদ্ধের ঘটনা সেরকম নয়। বর্তমান যুদ্ধ হল একটি সাআাজ)বাদী যুদ্ধ। এর মুখ্য লক্ষ্য হল, ধনতান্ত্রিকভাবে উন্নত রাষ্টগুলির ছার বিদেশী, এুধানতঃ কৃষিপ্রধান অঞ্চলগুলি দখল করে নেওয়া (জবরদখল করা )। ধনতাম্ত্রিক রাষ্্রগুলির চাই নতুন নতুন বাজার, এই সমস্ত বাজারের সঙ্গে হববিধাজনক যোগাযোগ, চাই কাচা মাল খনিজ সম্পদ আর তাই যে- সব অঞ্চল এই সমত্ত বিষয়ে সমৃদ্ধ সেগুলির অভ্যন্তরাণ শাসনব্যবস্থা যাই হোক না কেন, সেগুলিকে তারা দখল করে নিতে চায়।

থেকেই বোঝা যায়, কেন, সাধারণভাবে বলতে গেলে দখলীরুত অঞ্চল- গুলির পুরানে। শাসনব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠ। করার জন্য সেগুলির অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হম্তক্ষেপ করা বর্তমান যুদ্ধের আবশ্ঠিক পরিণতি হতে পারে না।

এবং ঠিকঠিক এই কারণেই রাশিয়ার বর্তমান পরিস্থিতি এই বিপদ- দংকেতের ঘোষণায় এট] প্রতিপন্ন বরেনা যে "স্বাধীনতা বিপদাপন্ন! যু দীর্ঘস্থায়ী হোক!

এট। বল! অধিকতর সত্য হবে যে রাশিয়ার বর্তমান পরিস্থিতি ১৯১৪ সালের যুদ্ধারস্তের সময়কালের ফ্রান্সের পরিস্থিতির সমরূপ, যখন ফ্রান্স জার্মানির মধ্যে যুদ্ধ অপরিহার্য হয়ে দাড়িয়েছিল।

আজকের রাশিয়ার বুর্জোয়া পত্র-পত্জিকার অস্ুরূপভাবেই সেদিনকার ফ্রান্সের বুর্জোয়া পক্র-পত্তিকায় বিপদ-সংকেত ধ্বনিত হয়েছিল £ “সাধারণতন্ত্র বিপন্ন ! জান্নানদের সাথে যুদ্ধ কর!

এবং সেদিনকার ফ্রান্সে যেমন বিপদাশংক1 বহু সোশ্টালিষ্টের ( গুয়েসদে, সেমব্যাত ইত্য।দি ) মধ্যে বিস্তৃত হয়েছিল, তেমনি আজকের রাশিয়ায় বেশ কিছুসংখ্যক সোশ্ালিষ্ট “বপ্লবিক প্রতিরক্ষার' বুর্জোয়া ঘোষকদের পদাংক অন্থপরণ করছে।

ফ্রান্সে পরব্তা! ঘটনাসমূছের অগ্রগতি দেখিয়ে দিয়েছিল যে, এটা ছিল একটি মিথ) বিপদ-সংকেত, দেখিয়ে দিয়েছিল যে, ফরাসী পাম্রাজ্যবাদীর! ষে অ]লসেস-লোরেন ওয়েষ্টফেলিয়া দখল করার জন্ত লোলুপ হয়ে উঠেছিল জেই

ঘটনা! আড়াল করার পক্ষে স্বাধীনতা সাধারণতন্ত্র সম্পর্কে চীৎকার ছিল একটি আবরণ।

আমরা বিষয়ে নিশ্চিত যে, রাশিয়ায় ঘটন|র অগ্রগতি “স্বাধীনতা! বিপন্ন”, এই মাত্রাহীন আর্তনাদের পুরোদস্তর মিথ্যার মুখোসও খুলে দেবে দেশপ্রেমের ধূমজাল অপৃশ্ঠ হবে এবং জনসাধারণ নিজেরাই দেখতে পাবে যে রাশিয়ার সাত্রাজবাদীরা প্রকৃতপক্ষে যার সদ্ধানে রস্ছে তা হল-_প্রথালীগুলি পারম্যদেশ | **"

গুয়েসদে, সেমব্যাত তাদের সমমতাবলম্বী ব্যক্তিদের আচরণের যথাযথ প্রামাণা মূল্যাষন জিমারওয়ান্ড কিয়েম্াল পোশ্যালিষ্ট কংগ্নেসসমূহের (১৯১৫-১৬)১ যুদ্ধ-বিরোধী প্রস্তাব গুলিতে হয়ে খিয়েছে।

পরবর্া ঘটনাবলী টিমারওয়ান্ড কিয়েম্থালের বক্তব্যের সঠিকতা সারবন্তা পুরোপুরি গুমাণ করেছে

রাশিয়ার বৈপ্লবিক গণতম্ব, য। ঘৃণ্য জাবশাসন উচ্ছেদ করতে সক্ষম হয়েছিল, তা যদি লাআ্রাজ্যবাদী বুর্জোয়াদের দ্বার৷ প্রচারিত বিপদ-সংকেতে দিশেহার। ছয়ে পড়ে এবং গুয়েদে দেমব্যাত ইত্যাদির ভূলভ্রান্তির পুনরাবৃত্তি করে, তাহলে তা হবে একটি শোচনীয় ঘটন! |".

পার্টি হিলাবে বর্তমান যুদ্ধ সম্বন্ধে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি কি হবে?

যুদ্ধের দ্রুতত্তম অবসান ঘটাতে সক্ষম বাণ্তব উপায়-উপকরণ কি?

সর্বপ্রথম, “যুদ্ধ নিপাত যাক! এই নগ্ন শ্লোগানটি বাস্তব উপায় হিসাবে যে পুরোপুরি অন্থপঘুক্ত ত৷ গ্রশ্তাতীত। কেননা, যেহেতু শ্লোগানটি সাধারণভাবে শান্তির ধারণ! প্রচারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ, সেহেতু যুদ্ধরত শক্তিগুলিকে যুদ্ধ বন্ধ করতে বাধ্য করার পক্ষে তাদের ওপর বাস্তব প্রভাব প্রয়োগ করতে সক্ষম এমন কিছুর ব্যবস্থা তা করতে পারে না।

আরও, তাদের নিত্য নিত্য সরকারকে হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে বাধ্য করার আহ্বান জানিয়ে বিশ্বের জাতিসমূহের নিকট শ্রমিক দৈনিক প্রতিনিধিগণের পেত্রোগ্রাদ সোভিয়েত গতকাল যে আবেদন করেছে, তা অবশ্তই অভ্যর্থনীয় | যদি এই আবেদন ব্যাপক জনগণের নিকট পৌছায়, তাহলে তা “ছনিয়ার শ্রমিক, এক হও | এই বিশ্বত শ্লোগানের দিকে নিঃসন্দেহে হাজার হাজার শ্রমিকের দৃষ্টি ফিরিয়ে আনবে। ভা সত্বেও, এটা অবশ্তই নজরে রাখতে হবে যে, তা সোজাহ্জি লক্ষ্যের দিকে পরিচালিত করে না। কেননা,

২১

এমনকি এটা যদ্দি ধরেও নেওয়া যায় যে আবেদনটি যুদ্ধরত দেশগুলির জাতিসমূহের মধ্যে বিস্তৃতভাবে ছড়িয়েও পড়েছে, তাহলে তারা যে সেই অন্যাযমী কাজ করবে তা বিশ্বাস কর! শক্ত; কারণ, দেখা যাচ্ছে যে, ব্তমান যুদ্ধের লুনমূলক প্রকৃতি এবং ভার জবরদখলের লক্ষ্যটি তারা এখনো উপলব্ধি করেনি। আমরা ঘটনার কিছুই বলি না যে, যেহেতু এই আবেদন- পত্রে জার্খানির 'আধা-নিরগ্কুশ শ্বৈরতন্ত্রের' প্রাথমিক উচ্ছেদসাধনকে এই ভয়াবহ হত্যাকাণ্ডের বিরতি ঘটাবার পূর্বশর্ত হিসাবে দেখানো হয়েছে, সেহেতু তা বস্ততঃপক্ষে এই ভগাবহ হত্যাকাণ্ডের বিরতিকে' অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত রাখছে এবং “শেষ পধন্ত যুদ্ধ' চালিয়ে যাবার অবস্থান সমর্থন করার দিকে ঝুঁকছে ; কেননা কেউই সঠিকণাবে বলতে পারে না যে, কথন জার্মানির জনগণ “আধা-নিরম্কুশ ন্বরতন্ত্রকে' উচ্ছেদ করতে সক্ষম হবে, অথবা! নিকট ভবিষ্যতে তা করতে তার! আদে সক্ষম হবে কিনা ।...

তাহলে সমাধানট কি হবে?

সমাধান হুল, অস্থায়ী সরকারের উপর চাপ হৃষ্টি করা যাতে সে অবিলক্ষে শ/ন্তির জন্ত আপোষআলোচন! "শক করবার পক্ষে তার সম্মতি ঘোষণ। করে।

শ্রমিক, সৈনিক এবং কৃষকেরা অবশ্তই লভা-শোভাষাত্রা অনুষ্ঠিত করবে এবং দাবি করবে যে, অস্থায়ী সরকার, জানিসমূহের আত্মনিযন্ত্রণের অধিকারের স্বীকৃতিদানের ভিত্তিনে অবিলন্দে শান্তির জন্য আলাপ- আলোচনা শুরু করতে যুধ্যমান শক্তিগুলিকে রাঁজী করাবার প্রচেষ্টায় সুস্পষ্টভাবে প্রকাশ্যে নিশ্চিতরূপে ব্রতী হবে।

কেবলমাত্র তখনই ঘ্ুদ্ধ নিপাত যাক! শ্লোগানটির শৃন্গর্ভ অর্থহীন শাস্তিবাদে রূপান্তরিত হবার আশংক1 থাকবে নাঃ কেবলমাত্র তখনই শ্লোগানটি একটি প্রচণ্ড রাজনৈতিক প্রচার-আন্দোলনে বিকশিত হতে সক্ষম হবে__-এই আন্দোলন সাম্রাজ্যৰাদীদের মুখোস খুলে দেবে এবং বর্তমান যুদ্ধের প্রকৃত উদ্দেশ্য অনাবৃত করবে।

কেননা পক্ষদের একটি, একটি নিদিষ্ট ভিত্তিতে আলাপ-আলোচনা করতে অস্বীরুত, এমনকি এটা ধরে নিলেও--এমনকি এই অস্বীকৃতি, অর্থাৎ লবলে' এলাকা দখল করে নেবার উচ্চাকাঙ্খা বর্জন করার অনিচ্ছ। "ভয়াবহ হত্যাকাণ্ডের” বিরতি ত্বরান্বিত করার উপায় হিসাবে বাস্তবে কার্কর হবে, কেননা তখন

হু

জাতিসমূহ নিজেরাই যুদ্ধের লুণ্ঠনমূলক চরিত্র এবং সাত্রাজ্যবাদী গোষ্ঠীসমূহের রক্তরঞ্জিত চেহারা দেখতে পাবে, যাদের লোলুপ স্বার্থে তারা তাদের সন্তানকে বলি দিচ্ছে।

_ কিন্তু সাম্াজ্যবাদীদের মুখোস খুলে দেওয়া এবং বর্তমান যুদ্ধের প্রকৃত উদ্দেস্ের প্রতি ব্যাপক জনগণের চোখ খুলে দেওয়া বান্তবক্ষেত্রে হল যুদ্ধের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণ! করা এবং বর্তমান যুদ্ধকে অসম্ভব করে তোলা!

প্রাভদা; সংখয। ১৩

১৬ই মার্চ, ১৯১৭ হ্বাক্ষর £ কে. শ্তালিন

২৩

মন্ভ্রিদগুর়ের জন্ত তগুপরত।

কিছাদন আগে ইয়েদিনম্তভো গোঠীর২ ছারা গৃহীত অস্থায়ী সরকার, যুদ্ধ এঁক্যের উপর প্রস্তাবগুলি সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছিল

এই গোঠী হল প্রেখানভ-বুরিয়ানভ গোঠী। একটি “প্রতিরক্ষা-পন্থী” গোষ্ঠী

এই গেঠী্র চরিত্র বুঝতে হলে এটা জানাই যথেষ্ট যে এর মত হুল

(১) 'অস্থায়ী সরকারে শ্রমিব শ্রেণীৰ গণতন্ত্রের অংশগ্রহণের দ্বারা অস্থায়ী সরকারের কার্ধকলাপের উপর প্রযোজনীয় গণতান্ত্রিক নিয়ন্ত্রণ ₹বচেয়ে ভালভাবে প্রতিচিত হতে পারে"

(২) অস্থান্য যুক্তির মধ্যে একট যুক্তি হল এই যে, “অষ্টো-জার্ম।ন প্রতিক্রিয়ার ভয়াবহ বিবদদ থেকে ইইরোপকে মুক্ত করার' জন্য 'অমিব্ঞেণী অবশ্ঠই খুদ্ধ চা লয়ে যাবে?

সংক্ষেপে, তারা শ্রমিকদের নিকট যা দাবি করছে তা হল £ ভদ্রমহোদয়গণ, গুচকভ-মিলিউকভের অস্থায়ী সবকারে আপনাদের প্রতিভূ পাঠান এবং দয়া করে যুদ্ধ চালিয়ে যান__কনস্তান্তিনোপ্‌ দখল করার জন্ত |

এই-ই হল প্রেখানভ-বুরিয়ানভ গোঠীর সোগান।

এবং, এর পরে, এর সঙ্গে এক্যবদ্ধ হবার জন্ত এই গো্ীটি রুপ সোশ্যাল ভিমোক্র্যাটিক লেবার পার্টির নিকট অনুরোধ জানাবার স্পর্ধ। রাখে !

ইয়েদিনস্তভোর বিশিষ্ট ব্যক্তির। ভূলে যাচ্ছে যে, রাশিয়ার সোশাল ডিমোক্র্যাটিক লেবার পার্টি জিমারওয়াল্ড-কিয়েস্থাল প্রন্তাবসমূহ মনি করে; এই প্রস্তাবসমূহে প্রতিরক্ষা-সমর্ধন বর্তমান সরকারে অংশগ্রহণ প্রত্যাখ্যাত হয়েছে, এমনকি যদিও এই সরকার অস্থায়ী হয় (বিষ্টীবী অস্থায়ী সরকারের সঙ্গে এই সরকারের পার্থক্য-উপলব্ধিতে যেন বিভ্রান্তি না হয় !)।

তারা এটা প্রণিধান করতে ব্যর্থ হয় যে, জিমারওয়ান্ড কিয়েস্থাল ছল গুয়েদদে সেমব্াতকে অগ্ীকার করা, এবং, বিপরীতভাবে, গুচকভ মিলিউকভের সঙ্গে এক্য রাশিয়ার সোশ্টাল ডিমোক্র্যাটিক লেবার পার্টির সঙ্গে একা ব্যাহত করে|"

তারা এই ঘটনা দেখেও দেখেনি যে এর মাঝেই অনেক দিন হয়ে গেছে যখন থেকে লিবনেখট দিদেম্যান্‌ একজে এক পার্টিতে থাকেননি, একে থাকতে পারেন না।""

মহাশয়রা, না, আপনাদের কোর আবেদন আপনারা ভূল ঠিকানায় পাঠিয়েছেন!

কেউ, অবশ্থী, মন্ত্রিদপ্তরের জন্ত তৎপর হতে পারেন, কেউ যুদ্ধ চালিয়ে যাবার উদ্দেশ্তে মিলিউকভ গুচকভের সঙ্গে এঁক্য গড়তে পারেন, ইত্যাদি সমস্ত হল রুচির ব্যাপার। কিন্ত এর পাথে রাশিয়ার সোশ্াল ডিমোক্র্যাটি পার্টির সম্পর্ক কি? এবং এর সাথেই বা একা সাধন কবতে চান কেন?

না, মহাশয়রা, আপনারা আপনাদ্দের পথে চলুন

গ্রাতদ।, সংখ্যা ১১ ১৭ই মার্চ, ১৯১৭ ্বাক্ষরবিহীন

রুশ-বিপ্লীবের জয়লাভের শর্তাবলী

বিপ্রব এগিয়ে চলেছে এর আরম্ভ হয়েছিল পেজোগ্রাদে, এখন তা প্রদেশে প্রদেশে সম্প্রসারিত হচ্ছে, ছড়িয়ে পড়ছে রাশিয়ার সীমাহীন হ্থবিশাল বিস্তৃত্িতে। তাছাড়া, কেবল রাঙ্ুনৈতিক গুশ্ল থেকে তা এখন অবশ্বভাবি- রূপেই সামাজিক গুশ্রে অতিক্রান্ত হচ্ছে, অতিক্রান্ত হচ্ছে শ্রমিক রুষকদের ভাগ্য উন্নত করার প্রশ্নে; এর ফলে বর্তমান সংকট অধিকতর-ঘনীতৃত তীস্কতর হচ্ছে। এব রাশিয়ার সম্পত্তির মালিকদের নিদিষ্ট মহলগুলিতে উদ্বেগ স্ষ্টি না করে পাবেনা জারপস্থী প্রতিক্রিয়াশীল জমিদারের ফণ৷ তুলছে সাম্রাজ্যবাদী চক্রীদদল বিপদ-সংকেত জ্ঞাপনের ঘণ্টা বাজাচ্ছে। প্রতিবিপ্রবের সম্মিলিত সংগঠন গড়ে তোলার উদ্দেশে অর্থ-জোগানদার বুর্জোয়ারা সেকেলে মামন্ত- তাঁত্রক অভিজাতবগের দিকে সহযোগিতার হাত প্রনারিত করছে আজ তার! এখনো দুর্বল শিথিলসংকল্প, কিন্তু আগামীকাল তারা অপেক্ষাকত শক্তিশালী হতে পারে এবং বিপ্লবের বিরুদ্ধে জড়ো হয়ে সক্রিয় হতে পারে। যেকোন অবস্থাতেই, তার! প্রতিনিয়ত তাদের ক্ষতিকর কার্ষকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে, জনগণের সমস্ত অংশ থেকে বাহিনী জড়ো! করছে, সৈম্তবাহিনীকেও বাদ দিচ্ছে না। ". এই জায়মান প্রতিবিপ্রবকে কিভাবে দমন করা যেতে পাবে? রুশ-বিপ্রবের জয়লাভের জন্য কি কি শর্ত প্রয়োজন? আমাদের বিপ্লবের অন্ততম বৈশিষ্ট্য হল এই যে, আজ পর্যস্ত এর ঘাটি হল পেত্রোগ্রাদ। সংঘর্ষ এবং গুলিগোলাবর্ষণ, ব্যারিকেড হতাহতের ঘটনা, লড়াই জয়লাভ ঘটেছে প্রধানতঃ পেত্রোগ্রাদে তার চারিপাশের অঞ্চলসমূহে ক্রোনস্তাদ ইত্যাদি ) | প্রদেশগুলি জয়লাভের ফলকলগুলি গ্রহণে অস্থায়ী সরকারের গ্রতি আস্থা প্রকাশের মধে)ই নিজেদের সীমাবদ্ধ রেখেছে। এই ঘটনার প্রতিফলনে দ্বৈত ক্ষমতার উন্তব হুয়েছে_-অস্থায়ী সরকার এবং ' শ্রমিক সৈনিক গরতিনিধিদের পেত্রোগ্রাদ লোভিয়েতের মধ্যে ক্ষমতার প্রকৃত ভাগাভাগি ঘটেছে, আর এট]ই হয়ে পড়েছে প্রতিবিপ্রবের ভাড়াটেদের মধ্যে

১৬

এত উদ্বেগের কারণ। একদিকে, শ্রমিক সৈম্তদের বৈপ্লবিক সংগ্রামের যন্ত্র --শ্রমিক সৈম্থদের প্রতিনিধিগণের পেত্রোগ্রাদ সোভিয়েত, অন্থদিকে, নরম- গম্থী কুর্জোয়ারা, যারা বিপ্লবের 'আতিশয্যে আতংকিত এবং যার! প্রদেশগুলির নিক্ষিযতার মাঝে অবলম্বন খুঁজে পেয়েছে তাদের যন্ত্র_অস্থায়ী সরকার -- এই-ই হুল চিত্র।

এইখানেই নিহিত রয়েছে বিপ্লবের দুর্বলতা, কেননা একূপ অবস্থানেই রাজধানী থেকে প্রদেশসমূহের বিচ্ছিন্ন 51 স্থায়ী হয়, স্থায়ী হয় তাদের মধ্যে সংযোগের অভাব।

কিন্তু বিপ্লব গভীরে যাবার সাথে সাথে প্রদেশগুলিও বিপ্লবপস্থী হয়ে উঠছে। এলাকায় এলাকায় শ্রমিকদের প্রতিনিধিগণের সোভিয়েত গঠিত হচ্ছে। কৃষকেরা আন্দোলনের মধ্যে আকুষ্ট হচ্ছে এবং তাদের নিজেদের ইউনিয়ন সংগঠিত করছে। সৈম্ভবাহিনীর মধ্যেও গণপ্ভান্ত্রিক মনোভাব দানা ব|ধছে এবং সামরিক ইনউনিটসমূছে সৈন্তদরের ইউনিয়ন সংগঠিত হচ্ছে। প্রদেশগুলির নিচ্ছ্রিয়তা অতীতের ঘটন! হয়ে দাড়াচ্ছে।

এইভাবে অস্থায়ী সরকারের পায়ের তলার মাটি কাপছে।

একই সময়ে, শ্রমিকদের প্রতিনিধিগণের পেজ্রোগ্রাদ সোভিয়েত নতুন পরিস্থিতির সাথে সমান তালে চলতে পারছে না, পিছিয়ে পড়ছে।

যা প্রয়োজন তা৷ হল সমপ্র রাশিয়ার গণতান্ত্রিক শক্তির বৈপ্লবিক সংগ্রামের একটি সারা-রাশিয়া যন্ত্র, রাজধানী প্রদেশগুলির গণতান্ত্রিক শক্তিকে দৃঢ়ভাবে সংযুক্ত করতে এবং প্রয়োজনীয় মূহূর্তে জনগণের বৈপ্লবিক সংপ্রামকে টপ্লবিক ক্ষমভার একটি যন্ত্রে পরিণত করার পক্ষে মার যথেষ্ট যোগ্যতা থাকবে_-এই ক্ষমতা জনগণের সমস্ত প্রাণবন্ত শক্তিকে প্রতিবিপ্রবের বিরুদ্ধে জড়ো করে সক্রিয় করে তুলবে

কেবলমাত্র শ্রমিক, সৈনিক এবং কৃষকদের প্রতিনিধিগণের একটি সারা রাশিয়। সোভিয়েত এরূপ একটি যন্ত্র হতে পারে। ক্ুশ-বিপ্রবের বিজয়লাতের এইটি হল প্রথম শর্ত

তা ছাড়া, জীবনের সবকিছুর মতো, যুদ্ধের খারাপ দিকটার সাথে ভাল দিকও আছে। তা হল এই-_কার্ধতঃ রাশিয়ার সমস্ত প্রাপ্তবয়স্ক অধিবাসীদের, ুদ্ধার্থে প্রস্তত বরে যুদ্ধ £সন্তবাহিনীকে একটি জনগণের সন্তবাহিনীর চরিত্র দিয়েছে এবং এর ছ্বার। বিদ্রোহী শ্রমিকদের সঙ্গে সৈম্তদের এক্যবদ্ধ করার কাজ-

চা

সহজতর করেছে আমাদের দেশে বিপ্লব যে তুলনামূলক সহজসাধ্যতার সঙ্গে ঘটেছে বিজয়ী হয়েছে, তার ব্যাখ্যা প্ররুতপ্রস্তাবে এর মধ্যেই নিহিত।

কিন্তু সৈন্যবাহিনী হল সচল বর্তমান, বিশেষ করে যুদ্ধের প্রয়োজন অন্নযায়ী তাকে এক জায়গ! থেকে আর এক জায়গায় নিরন্তর ধেতে হয় বলে। পৈম্যবাহিনী স্থায়ভাবে এক জায়গায় অবস্থান করতে পারে না এবং পারে না বিপ্লবকে প্রতিবিপ্রবের হাত থেকে রক্ষা করতে সেইহেতু, আর একটি সশস্ত্র বাহিনীর প্রয়োজন-_সশস্স আর্মকদের একটি বাহিনী, যারা বৈপ্লবিক আন্দোলনের কেন্দরগুলির সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে সংযুক্ত, তাদের একটি বাহিনী এবং যদি এট] সত্য হয় যে, সব সময়ে পিপ্নরের স্বার্থমাধনে প্রস্তুত এমন একটি সশন্ব বাছিনী ব্যতিরেকে বিপ্রব জয়লাভ কপতে পারে না, তাহলে আমাদের ধিপ্রবেবও অবশ্তই নিজন্ব একটি বাহিপী থাববে_বিপ্রবের লক্ষ্যের সঙ্গে অভ্যাৎস্য কদূপে গ্রখিত শ্রমিকদের একটি রক্ষিবাহিনী |

এইভাবে বিপ্রবেব জয়লাভের জন্য দ্বিতীয় শর্ত হল শ্রমিকদেব অবিলঘ্ে সশস্ত্র করা শ্রমিকদের একটি রক্ষীবাহিনী।

বৈপ্লবিক আন্দোল্নসমূহেব একটি বিশিষ্ট লক্ষণ--উদাহরণণ্বরূপ ফান্সে__ ছিল এই সন্দেহাতীত ঘটনা যে, সেসব জায়গায় অস্থায়ী সরকারসমূহ সাধারণতঃ উদ্ভূত হয়েছিল ব্যারিকেড লড়াইয়ের মধ্য থেকে এবং সেহেতু সেগুলি ছিল বিপ্লবী, অথবা যে-কোনভাবেই পরবর্তীকালে তারা যে সংবিধান-পরিষদসমূহ ডেকেছিল তাদের থেকে অধিকতর িপ্রবী; এই পরিষদগুলির অধিবেশন সাধারণতঃ আহুত হুযেছিল দেশে "শান্তি স্থাপন করার? পর। এটাই বাস্তবিক- পক্ষে ব্যাখ্য। করে কেন সেই সমস্ত সময়ের অধিকতর অভিজ্ঞ বিপ্রধীর1 সংবিধান- পরিষদের অধিবেশনে বিলম্ব ঘটিয়ে, এই পরিষদ অধিবেশন আহ্‌ত হবার পূর্বেই, বিপ্লবী সরকারের সাহাযো তাদের কর্মহূচী গ্রহণ করিয়ে নিতে চেষ্টা করতেন ইতিপূর্বে সম্পাদিত সংস্কারপন্থ। নিয়ে সংবিধান-পরিষদের সম্মুখীন হতে হবে, এই ছিল তাদের ধারণ।।

আমাদের দেশের পরিস্থিতি সেরকম নয়। আমাদের অস্থায়ী সরকার জন্ম নিয়েছে ব্যারিকেড-লড়াইয়ের মধ্য থেকে নয়; ব্যারিকেড-লড়াইয়ের কাছাকাছি অবস্থ। থেকে এর জন্তই তা বিপ্লবী নয়-_তাকে এখন অনিচ্ছুক ভাবে টেনে-হি চড়ে নেওয়। হচ্ছে বিপ্লবের পিছনে পিছনে এবং তা তার পথে চলেছে এবং, বিপ্রব ক্রমে ক্রমেই বেশি বেশি করে প্রগাঢ় হচ্ছে, লামাজিক

দাবি উপস্থিত করছে-_যেমন, আট-ঘণ্টার কাজের দিন, জমি বাজেয়া্ধ করা" _এবং প্রদেশগুলিকে বিপ্লবমূখি করে তুলছে, এই ঘটন! বিচার করে এটা আস্বামহকারে বলা যেতে পারে যে ভবিষ্যৎ লোকায়ত সংবিধান-পরিষদ ওর! জুন তারিখের ডুম। কর্তৃক নির্বাচিত বর্তমান অস্থায়ী সরকারের তুলনায় অনেক বেশি গণতান্ত্রিক হবে।

অধিকন্ধ, এই আশংকা করতে হবে যে, বিপ্লবের গতিবেগে আতংকিত এবং সাম্রাজ্যবাদী ঝেোক-প্রণোদিত হলেও অস্থায়ী সরকার কতকগুলি রাজ- নৈতিক অবস্থায় ষে প্রতিবিপ্রব সংগঠিত হচ্ছে তার সপন্ষে "বধ? ঢাল আবরণ হিসাবে কাজ করতে পারে

সেইহেতু সংবিধান-পরিষদ আহ্বান করার ক্ষেত্রে কোন অবস্থাতেই দেরি করা চলবে না।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে যত দ্রুত সম্ভব একটি সংবিধান-পরিষদ আহ্বান বরা প্রয়োজন, কেননা এটাই হুল একমাত্র প্রতিষ্ঠান যা সমাজের সমস্ত অংশের নিকটেই আইনসংগত কর্তৃত্ব অর্জন করবে, বিপ্লবের কাজ তুঙ্গে ওঠাতে সমর্থ হবে, এবং এর ছার! উদীয়মান প্রতিবিপ্রবের ডানা কেটে দিতে সক্ষম হবে।

এইরূপে বিপ্লবের জয়লাভের তৃতীয় শর্ত হল একটি সংবিধান-পরিষদের আঁধবেশন ত্বরান্বিত করা

এই সমস্ত প্রয়োজনীয় কাধ সাধন্রর উপায়ের একটি সাধারণ শর্ত হল, যত শীদ্র সম্ভব শান্তির আলাপ-আলোচনা শু4 করানো! এবং এই অমান্থৃষিক যুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটানো, কেনন। এই যুদ্ধ, যা তার সঙ্গে সঙ্গে আথিক, অথনৈতিক এবং খাদ্যমংকট আনে, তা চালিয়ে যাওয়া হল সেই জলে-ডোবা। শৈল-চূড়া, যার উপর আছাড় খেয়ে বিপ্লবের জাহাজ ধ্বংস হতে পারে।

প্রাভদ1, সংখ্য। ১২

১৮ই মাচ? ১৯১৭ স্বাক্ষর: কে, স্তালিন

ত্ওী

জাতিগত প্রতিবন্ধলমূহের বিলোপ

যে ছুষ্ট ক্ষতসমূহ পুরানো রাশিয়ার লজ্জার কারণ ছিল জাতিগত নিপীড়ন সেগুলির অন্যতম

ধর্মগত ভাতিগত নির্যাতন, “বিদেশী” জাতিসমূহের বলপূর্বক রুশী করণ, জাতীয়-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলির দমনপীড়ন, নাগরিক অধিকারের অন্ীককতি চলাফেরার ত্বাধীনতার অন্ব'কৃতি, এক জাতিসত্তার বিরুদ্ধে আর এক জাতি- সত্তাকে উত্তেজিতকরণ, গণ-উত্মাদন গণ-হণন--এই সবই হুল জাতিগত নিপীড়নের বিভিন্ন রূপ; সবের স্মৃতি লজ্জাবহ।

কীভাবে জাতিগত নিপীড়ন নিমূল করা যেতে পারে?

জাতিগত নিপীড়নের সামাজিক ভিত্তি, যে শক্তি একে সপ্তীবিত করে ত। হল সেকেলে ভূমাধিকারী অভিজাতবর্গ। এবং এরা ক্ষমতা দখলের যত কাছাকাছি আসে, এবং যত দৃঢ়ভাবে তারা ক্ষমতা আকড়ে ধরে, তত কঠে।র

হয় জাতিগত নিপীড়ন, তত ঘ্বণ্য হয় এই নিপীড়নের রূপগ্ুলি।

প্রাচীন রাশিয়ায়, যখন পুরানো সামস্ততাপ্ত্রিক ভূম্যধিকারী অভিজ্াতবর্গ ক্ষমতায় আসীন ছিল, জাতিগত নিপীড়ন উঠত তুঙ্গে, গণ-উৎসাদনের ( ইছদীদের ) এবং গণ-হত্যাকাণ্ডের (আর্েনিয়ান-তাতারদের ) ৰূপ বিরল ঘটনা ছিল না।

ইংলগ্ডে ভূম্যধিকারী অভিজাতবর্গ ( জমিদারের ) বুর্জোয়াদের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে নেয় এবং বহু দিন ধরে তারা পূর্ণ ক্ষমতা ব্যবহ!র করা থেকে বিরত থাকায় জাতিগত নিপীড়ন অপেক্ষাকৃত অগ্গ্র, অপেক্ষাকৃত কম অমানুষিক__যদদি, অবশ্ত, আমরা এই সত্য ঘটন! উপেক্ষ। করি যে এই যুদ্ধের সময়কালে, যখন ক্ষমতা জমিদারদের হাতে চলে গিয়েছে, তখন জাতিগত নিপীড়ন আরও বেশি তীব্র হয়েছে ( আইরিশদের এবং ভারতীয়দের উপর নির্যাতন )।

এবং স্থইজারল্যাণ্ড উত্তর আমেরিকায়, যেদব স্থানে, জমিদারতন্ত্র কখনে। বিছ্মান থাকেনি এবং বুর্জোয়ারা অবিভক্ত ক্ষমতা ভোগ করে, সেদব স্থানে জাতিসভাসমৃহ কম-বেশি অবাধে বিকশিত হয় এবং সাধারণভাবে বলতে গেলে,

৩৬

€সেব জায়গায় জাতীয় নিপীড়নের কার্ধতঃ কোন ভিত্তিভূমি নেই।

একে প্রধানতঃ এই ঘটনার দ্বার! ব্যাখ্যা করতে হবে যে, তাদের প্রকৃত অবস্থানের জন্তই, ভূম্যধিকারী অভিজাতবর্গ জাতীয় শ্বাধীনতাসহ সমস্তর কম শ্বধীনতার সর্বাপেক্ষা দৃঢ়পণ অপ্রশম্য শত্র (তারা তা না হয়ে পারে না 1); যে, সাধারণভাবে স্বাধীনতা, বিশেষভাবে জাতীয় স্বাধীনতা, ভূম্যধিকারী অভিজাতবর্গের রাজনৈতিক শাসনের একেবারে ভিত্তিমূলের ক্ষতিসাধন করে €ক্ষতিসাধন না করে পারে না !)।

এইভাবে জাতীয় নিপীড়নের অবমান করা এবং জাতীয় স্বাধীনতার জন্য প্রয়োজনীয় প্রকৃত শর্তসমূহ সৃষ্টি করার উপায় হল, সামস্ততাস্ত্রিক অভিজাত- বর্গকে রাজনৈতিক রঙ্গমঞ্চ থেকে বিতাড়িত করা, তাদের হাত থেকে ক্ষমতা কেড়ে নেওয়া

যেহেতু রুশ-বিপ্লব বিজয়লাভ করেছে, সেইহেতু তা, সামস্ততাস্ত্রিক ভূমিদাম মালিকদেব ক্ষমতা উচ্ছেদ এবং স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠা করে, এরই মধ্যে এইসৰ প্রকৃত শর্তগুলি সৃষ্টি করেছে।

এখন যা প্রয়োজন তা হল :

(১) নিপীড়ন থেকে মুক্ত জাতিপত্তাসমূহের অর্ধিকারসমূহ যথাযথভাবে নিধারণ করা, এবং

(২) আইন প্রণয়নের দ্বার সেগুলি অনুমোদন করা।

এই ভিত্তিভূমি থেকেই ধর্মগত জাতিগত প্রতিবন্ধসমূহের বিলোপ সম্পর্কে অস্থায়ী সরকারের পরোয়ানা জারী কর] হয়েছিল।

বিপ্লবের ক্রমবৃদ্ধির কল্যাণে ত্বরান্বিত হয়ে, অস্থায়ী সরকার রাশিয়ার জাতিসমূহকে নিপীড়ন থেকে মুক্ত করার দিকে প্রথম পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছিল; এবং সে তা নিয়েছিল

পরোয়ানার 'পাধারণ সারাংশ হল, অ-রুশ জাতিসত্তা এবং অর্থডকস্‌ চার্চের অন্থগামী নয় এমন নাগরিকদের অধিকারসমূহের উপর বিধিনিষেধের বিলোপ- সাধন; এই বিলোপসাধন করা হল নিয়োক্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে (১) বসবাস, স্থায়ী নিবান চলাফেরা ; (২) সম্পত্তির অধিকারসমূহ ইত্যাদি অর্জন ; (৩) যে-কোন পেশা, ব্যবস! ইত্যাদিতে প্রবৃত্ত হওয়।) (৪) যৌথ বাণিজ্য- প্রতিষ্ঠান এবং অন্তান্ত সংঘ-সমিতিতে অংশগ্রহণ , ৫) সরকারী চাকরী ইত্যাদিতে কার্ধগ্রহণ 7; ৮৬) শিক্ষা-গ্রতিষ্ঠানসমূহে ভতি হওয়া ; (৭)"-

৩১

বেসরকারী সমিতিসমূহের বিষয়াদি পরিচালনায়, সমস্ত রকমের বেসরকারী শিক্ষাসংস্থায় শিক্ষাদানে এবং বাণিজ্যিক হিসাব রাখার বিষয়ে রুশভাষা ছাড়া অন্তান্ত ভাষা এবং আঞ্চলিক ভাষার বা বা»নের ব্যবহার

এই হুল অস্থায়ী সরকারের পরোয়ানা

রাশিয়ার জাতিসতাসমূহ যারা পর্যন্ত সন্দেহ পোষণ করত, তার। এখন অবাধে শ্বাসপ্রশ্বাস নিতে পাঁরে এবং অনুভব করতে পারে তারা রাশিয়ার নাগরিক।

এসব খুব ভাল কথাই।

কিন্ত এই পরোয়ানা জাতীয় স্বাধীনতা স্থনিশ্চিত করার পক্ষে যথেষ্ট এবং এই পরোয়ানায় জাতিগত নিপীড়ন থেকে মুক্তি এর মাঝেই পুরোপুরি সম্পাদিত হয়েছে, একথা বিবেচনা করা ক্ষমার অযোগ্য ভ্রান্তি হবে।

গ্রথমতঃ, এই পরোয়ানা ভাষা সম্পর্কে জাতিগত সমতা প্রতিষ্ঠা করে না। পরোয়ানার সর্বশেষ ধারা॥ বেসরকারী বিষয়াদি পরিচালনায় এবং বেসরকারী শিক্ষাসংস্থায় শিক্ষাদানে রুশভাষা ছাড়া অন্তান্ত ভাষ! ব্যবহার করার অধিকারের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু সেইসব এলাক। যেখানে অ-রুশ নাগরিকেরা ঘন সঙ্গিবিষ্ট সংখ্যাগরিষ্ঠ, যাদের ভাষা রুশভাষা নয়, তাদের কি হবে [ট্রান্সককেশিয়", তুকস্তিন, ইউক্রাইন, লিথুয়ানিয়া ইত্যাদি)? কোন সন্দেহ নেই, তাদের পালণমেণ্ট থাকবে (নিশ্চিতভাবে থাকবে !) এবং সেজন্য “বিষয়াদি” থাকবে (অবশ্ই “বেসরকারী নয় 1), থাকবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (শুধুমাত্র “বেসরকারী” নয় ! ) "শিক্ষাদান? ব্যবস্থা_এবং লমস্তই, অবশ্ঠ, শুধু রুশভাষায় নয়, স্থানীয় ভাষাতেই থাকবে। এটাই কি অস্থায়ী সরকারের ধারণা যে, রুশভাষাকে রাষ্ট্রভাষ! বলে ঘোষণ1 কর! হবে এবং এই সমস্ত এলাকাকে তাদের স্থানীয় ভাষায়, ভাবের প্রতিষ্ঠানসমূহে' অবশ্যই “বেসরকারী? নয়, “বিষয়াদি” পরিচালনা “শিক্ষাদান” কর। থেকে বঞ্চিত করা হবে? আপাতদৃষ্টিতে তাই মনে হুয়। কিন্তু নির্বোধ লোক ছাড়া কে বিশ্বা করবে যে এর দ্বারা জাতিসমূহের অধিকারের পরিপূর্ণ সমতা স্থচিত হচ্ছে, যার কথা রেচ৩ দ্াইয়েন৪-এর বুর্জোয়া খোন-খবর রটনাকারীরা মস্ত বাড়ির ছাদ থেকে, সমস্ত রাস্তার মোড়ে মোড়ে উচ্চৈঃম্বরে কীর্তন করছে ? এটা উপলব্ধি করতে কে ব্যর্থ হতে পারে যে এর অর্থ হল জাতিসমূহের “মধ্যে অ-সমতাকে আইনঙগম্মত করা ?

৬২

তা ছাড়া, যে কেউই সত্যিকারের জাতীয় সংহতি প্রতিষিত করতে চায়, সে শুধু অযোগ/ত! বিলোপ করার নএঙ্খক পন্থার মধ্যে নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখতে পারে না__তাকে প্রতিবন্ধের বিলোপসাধন থেকে এমন সদর্থক কর্মম্থচী গ্রহণে নিশ্চিতরূপে অগ্রসর হতে হবে যা জাতীয় নিপীড়ন নির্মূল করা স্থনিশ্চিত করবে।

স্থতরাং ঘোষণ! করতে হবে £

(১) নিজেদের ভাষায় “কাধাদি” “শিক্ষা” পরিচালনা করার অধিকার সহ, জীবনযাত্রার একটি নির্দিষ্ট ধরনে একটি নির্দিষ্ট জাতীয় উপাদানে গঠিত অরধিবাপী অধ্যুষিত অথণ্ড অর্থ নৈতিক ভূখণ্ডের প্রততিনিধিত্বকারী অঞ্চলগুলির জন্য রাজনৈতিক স্বায়ত্শানের অধিকার ( ফেডারেশন নয়!)

(২) সেই সমস্ত জাতি, যারা, যে-কোন কারণেই হোক, অখণ্ড রাষ্ট্রের কাঠামোর মধ্যে থাকতে পারে না, তাদের জন্ত আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার

জাতীয় নিগীড়নের সত্যিকারের বিলোপসাধন এবং জাতিসত্বাগুলিকে পুঁজিবাদের অধীনে সম্ভাব্য সর্বাধিক স্বাধীনতা! দেওয়া স্থনশ্চিত করার দিকে এই-ই হল পথ।

গ্রাভদা, সংখ্যা ১৭ ২৫শে মার্চ ১৯১৭ ত্বাক্ষর ; কে. শ্তালিন

৩৬৩

স্তাজিন (৩য়)-৩

হয় এটা_ নয় ওটা

২৩শে মার্চ বৈদেশিক দণ্চরের মন্ত্রী মিঃ মিলিউকভ এক সাক্ষাৎকারে বর্তমান যুদ্ধের লক্ষ্যসমূহ সম্পর্কে তার “কর্মন্থচীর একটি রূপরেখা! দেন। আমাদের পাঠকেরা গতকলকার প্রাভদ1৫ থেকে জানতে পারবেন যে এই লক্ষ্যগুলি হল সামাজ্যবাদী £: কনশ্তান্তিনোপল্‌ দখল, আর্মেনিয়া দখল, অস্ট্রিয়া এবং তুকির বিভাঙ্গন, উত্তর পারস্য দখল।

এটা মনে হয় যে, রুশ নৈন্যেরা যুদ্ধক্ষেত্রে তাদের রক্ত ঢালছে “পিতৃভূমির প্রতিরক্ষায়' নধ, নয় শ্বাবীনতার জন্য দুর্নাতি গ্রস্ত ভাড়াটে বুর্জোয়া পত্র- পত্রিকা আমাদের নিশ্চিতরূপে বলছে-কিন্তু ভার! রক্ত ঝরাচ্ছে জনকয়েক লাআাজ/বাদীর স্বার্থে বিদেশী ভূখণ্ড দখল বরার জগ্ত।

মিঃ মিলিউকভ যা বলেছেন তা, অন্ততঃ, এই

কার নামে মিঃ মিলিউকভ এত ম্পষ্টাম্পস্ট প্রকাশ্ঠভাবে এপব বলছেন?

অবশ্তই, রাশিষার জনগণের নামে নয কেননা রাশিয়ার জনগণ-_ রাশিয়ার শ্রমিক, কৃষক এবং মৈগ্ঘমণ_-বিদেশী ভূখণ্ড দখল করার বিরোধী, বিরোধী তারা জাতিসমূহের উপর ত্যাচার করার। উদাত্ত ভাষায় এর সাক্ষ্য দিচ্ছে রাশিযার জনগণের ইচ্ছার মুখপত্র শ্রমিক সৈন্যদের প্রতিনিধি- গণের পেত্োগ্রাদ সোভিতেতের “আবেদন? |

তাহলে, কাদের মত মিঃ মিলিউকভ ব্যক্ত করছেন?

এটা কি সমগ্রভাবে অস্থায়ী সরকারের মত হতে পারে?

তাহলে গতকালের ভেচারনেয়ি ভ্রেমিয়া৬ সম্পর্কে কি বলেছিল ত।

দেখা যাক: '২৩শে মার্চ পেত্রোগ্রাদের সংবাদপত্রসমূুহে বৈদেশিক মন্ত্রী মিঃ মিলিউকভের যে

সাক্ষাৎকারের কথ প্রচাপিত হয়েছে, সে সম্পকে বিচারমন্ত্র' কেরেনক্কি বিগারমন্ত্রকের প্রেম ইনফরমেশন বুরোকে একথা বলতে ক্ষমতা দিয়েছেন যে, বর্তমান যুদ্ধে রাশিয়ার বৈদেশিক নীত্তির লক্ষ্য সম্পর্কে সাক্ষা্ুকারে যে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে তা মিলিউকভের ব্যক্তিগত মত, তা অস্থায়ী সরকারের

মতামতের প্রতিনিধিত্ব করে ন1।'

তাহলে, কেরেনস্বিকে যদি বিশ্বাস করতে হয়, সেক্ষেত্রে যুদ্ধের লক্ষ্যের 'মৌলিক প্রশ্নে মিঃ মিলিউকভ অস্থায়ী সরকারের মত ব্যক্ত করেন না।

সংক্ষেপে, যখন বৈদেশিক মন্ত্রী মিলিউকভ বিশ্বকে জানালেন যে, বর্তমান যুদ্ধের লক্ষ্য হল অস্টের রাল্জ্য দখল করা, তখন তিনি গুধু বাশিয়ার জনগণের ইচ্ছার বিরুদ্ধে যাননি, তিনি যার সদস্য সেই অস্থায়ী সরকারের বিরুদ্ধেও গিয়েছেন

জ[রতত্ত্রের দিনগুলিতে মিঃ মিলিউকভ জনণণের নিকট মন্ত্রীদের দায়িত্বের ওকালতি করতেন “আমরা তার সাথে বিষয়ে একমত যে মন্ত্রীরা জনগণের নিট দায়ী ৫ককিযৎ দিতে বাধ্য থাক্ণ্নে। আমরা জিজ্ঞাসা ক্রি £ মিঃ মলিউকও কি এখনো মন্ত্রীদের দাহিত্বের নীতি স্বীকার ধরেন ? এবং তা যদি তিনি কবেন, তবে কেন তিনি পদত্যাগ বরছেন না?

স্দথব। সণ্তবতঃ বেবেনস্কির বিবৃতি ছিল না_স্ঠিক ?

হয় এটি--ল! হয় অগ্টি £

হস্স বেরেনস্কির বিবৃতি ছিল অসত্য, সেক্ষেত্রে বিপ্লবী জনগণ অবশ্যই সবশ্থাধা সরকারকে নিম্নম শৃংখলার মধ্রো এনে তাকে তাদের ইচ্ছা মেনে শিতে বাধ্য করবে।

ন। হয় কেরেনক্কি সঠিক বলেছেন, পেক্ষেত্রে মিঃ মিশিউকতের অস্থায়ী সরকারে গান স্থান নেই _তীাকে অবশ্যই পদত্যাগ করতে হবে।

এদের মাঁঝামানি কোন রাস্তা নেই।

প্রাতদ।, সংথযা ১৮

“৬শে মাচ, ১৯১৭ সম্পাদকীয়

যুক্তরা ্্রবাদ-এর বিরদ্ধে

৫€নং দেলে! নারোদায়৭ 'রাশিয়া__বিভিম্ন অঞ্চলের সম্মিলনে গঠিত একটি রাষ্ট্র শিরোনামায় একটি প্রবন্ধ বেরিয়েছে। প্রবন্ধটিতে রাশিয়াকে একটি “বিভিন্ন অঞ্চলের সম্মিলনে গঠিত একটি রাষ্ট্রে, একটি যুক্তরাষ্ট্রে পরিবতিত করার স্থপারিশ করা হয়েছে-_এ থেকে একটু কম বা একটু বেশি দিছু নয়। কি বলছে শোনা যাক-_

“ঘোষণা কর! হোক, বিভিন্ন অঞ্চলে (লিটল রাশিয়া, জজিযা, সাইবেরিয়া, তুকিস্তান প্রভৃতি ) স্থন্ত সার্বভৌমত্বের লঙ্গণগুলি রাশিযার যুক্তরাষ্ গ্রহণ করছে ।.**কিস্ত এই যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন অঞ্চলকে অভ্যন্তর'ণ সার্বভৌমত্ব মঞ্জুর করুক। এবং আসন্ন সংবিধান-পরিষদ অঞ্চহ গুলির সম্মিলনে গঠিত একটি রুশ-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করুক।'

প্রবন্ধটির লেখক (জোস. অকুলিচ) নিমোক্ত ধরনে প্রবন্ধটি ব্যাখ্য। করছে £

'একটিমাত্র রুশ-সৈন্যবাহিনী, একটিমাত্র মুদ্রাব্যবস্থ।, একটিমাত্র বৈদেশিক নীতি, একটিমাত্র স্প্রীম কোর্ট প্রতিষিত হোক। কিন্ত এই একটিমাত্র রাষ্ট্রের বিভিন্ন এলাক। স্বাধীনভাবে তাদের নতুন জীবন গড়ে তোলার স্বাধীনতা লাভ করুক। যদি এর আগে ১৭৭৬ সালে একটি সংযুক্তির চুক্তির মাধ্যমে মাঞফ্িনরা**'একটি “যুক্তরাষ্ট্র” স্ষ্টি করতে পেরে থাকে, তাহলে ১৯১৭ সালে আমর! বিভিন্ন অঞ্চলের মিলনে একটি নু রাষ্ট্র স্থষ্টি কঃতে পারব না বেন?,

দেলে' নারোদ! এই কথ বলছে।

ত্বীকার করতেই হবে যে, প্রবন্ধটি নানাদিক থেকে আকর্ষণীয় এবং, যে.কোন হিসাবেই, মৌলিক বলতে গেলে, এর স্থরের গাভীর, “ইন্তেহার, ধরনে এর রচনাশৈলী কৌতুহলকরও বটে (“ঘোষণা কর! হোক", “প্রতিষ্ঠিত হোক' !)।

এসব সত্বেও, অবশ্যই এট! বলতে হবে যে, সাধারণভাবে প্রবন্ধটি মানসিক বিভ্রান্তির একটি বৈশিষ্ট্যমুলক নমুনা! মাফিন যুক্তরাষ্ট্রের (স্ুইজারল্যাণ্ড এবং কানাভারও ) শাসনতান্ত্রিক ইতিহাসের অগভীর উপলব্ধি থেকেই মূলতঃ এই মানসিক বিভ্রান্তির উদ্ভব

এই ইতিহাস আমাদের কি বলে?

১৭৭৬ দালে মাকিন যুক্তরাষ্ট্র একটি ফেডারেশন (যুক্তরাষ্ট্র) ছিল না, ছিল

৩৬

সেই সময় পর্যস্ত কতকগুলি স্বতন্ত্র উপনিবেশের অথবা রাষ্ট্রের একট কনফেডারেশন (রাষ্ট্র-সমবায় )। অর্থাৎ ছিল কতকগুলি শ্বতন্ত্র উপনিবেশ, কিন্ত পরবর্তাকালে, তাদের শক্রদের, প্রধানত: বাইরের শক্রদের, বিরুদ্ধে তাদের অভিন্ন স্বার্থ রক্ষা করার উদ্দেস্টে তারা একটি মৈত্রী (কনফেডারেশন) সম্পাদন করল, কিন্তু উপনিবেশগুলি পুরোপুরি শ্বতন্ত্র রাষ্ট্ইউনিট হিসাবে থেকে গেল। কিন্তু ১৮৬* সালের দশকে দেশটির রাজনৈতিক জীবনে একটি কঠোর পরিবর্তন ঘটল : উত্তরের রাষ্্রগুলি সংশ্লি্ রাষ্ট্রসূহের মধ্যে একটি দৃ়তর 'ঘনিষ্ঠতর রাজনৈতিক সংযোগ দাবি করল; এর বিরোধিত! করল দক্ষিণের রাষ্ট্রগুলি, তারা “কেন্দ্রিকতা”র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করল এবং পুরানো ব্যবস্থার নমর্থনে এগিয়ে এল। আরম্ভ হল "গৃহযুদ্ধ, যার পরিণতিতে উত্তরের রাষ্ট্রগুলির কর্তৃত্ব জোরদার হল। আমেরিকাতে একটি ফেডারেশন (যুক্তরাষ্ট্র) গঠিত হল, অর্থাৎ গঠিত হুল সার্বভৌম রাষ্ট্রগুলির মিলনে গঠিত একটি রাষ্ট্র এবং এই সর্বভৌম রাষ্ট্রগুলি ফেডারেল (কেন্দ্রীয়) সরকারের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাশি করে নিল। কিন্তু এই ব্যবস্থা বেশিদিন টিকল না। কনফেভারেশনের মতোই ফেডারেশন একটি ক্রান্তিকালীন ব্যবস্থা হিসাবে প্রমাণিত হুল। রাষ্টগুলি কেন্দ্রীয় সরকাবের ভিতরে লাগাতাবভাবে সংগ্রাম চলল, ঘ্বৈত সরকার অসহনীয় হয়ে দাড়াল এবং আরও বিবর্তনের গতিপথে মাকিন যুক্তরাষ্ট্র ফেডারেশন থেকে একটি এঁকিক ( অথগ্ড ) বাষ্ট্রে পরিণত হল; বিভিন্ন রাষ্ট্রগুলির জন্য থাকল সযরূপ শাপনত্রান্ত্রিক বিধিব্যবস্থা এবং এই বিধিব্যবস্থায় তাদের অপিত হল সীমাবদ্ধ স্বাযত্তশামনের অধিকার (সরকার-সংক্তান্ত নয়, রাজনৈতি ক-প্রশাসনিক )। যুক্তরাষ্ট্রে প্রযুক্ত ফেডারেশন" নামটি হয়ে দাড়াল একটি শুম্গর্ভ শব্দ, অতীতের একটি শ্বতিচিহ্ন মাত্র; তারপর থেকে বহুদিন হল এই নামটি বিষয়সমূহের প্ররুত অবস্থার সঙ্গে মানানসই হওয়া থেকে বিরত হয়েছে।

স্থইজারল্যাণ্ড কানাডার কথা প্রবন্ধের. রচয়িতা উল্লেখ করেছেন, এই দেশ ছুটি সম্পর্কেও অবশ্যই অনুরূপ কথা বলতে হবে। আমরা গোড়ার দিকে সেই একই ম্বতন্ত্র রাজাসমৃহ ( ক্যান্টন ) দেখতে পাই, আরও শক্তিশালী মিজিত রাষ্ট্রের জন্ত একই ধরনের সংগ্রাম দেখতে পাই (সুইজারল্যাণ্ডে সোন্দারবান্দের৮ বিরুদ্ধে সংগ্রাম, কানাডায় ব্রিটিশ ফরাসীর মধ্যে সংগ্রাম এবং পরবর্তীকালে ফেডারেশনের এঁকিক রাষ্ট্রে সেই একই রকমের পরিণত হওয়া দেখতে পাই।

৩৭

এইসব ঘটন! কি স্থচিত করে?

কেবলমাত্র এটাই স্থচিত করে, আমেরিকা, কানাডা স্থইজারল্যাণ্ডে ত্বতন্ত্র অঞ্চলগুলি থেকে ফেডারেশনেব মধ্য দিয়ে একিক বাষ্ট্র বিকশিত হওয়া , স্ছচিত করে, বিকাশের ঝেৌঁক ফেডারেশনেব অন্গকূলে নয়, ফেডারেশনের বিরুদ্ধে। ফেডারেশন একটি ক্রাস্তিকালীন ব্যবস্থা

এটা আকন্মিক নয়, কেনন1 পুজিবাদেব উচ্চতর রূপে অগ্রগতি, অর্থ- নৈতিক ভূভাগের আনুসঙ্গিক সম্প্রদারণ এবং বেন্দ্রায়িত হওয়াব দিকে তার ঝোক নিয়ে, বাষ্্রেব ফেডারেল রূপ দাবি করে না, দাবি করে এঁকিক রূপ।

আমরা এই ঝোক উপেক্ষা করতে পাবি না। যদ্দি, অবশ্ঠ, আমরা ইতিহাসেব চাকা পেছনে ঘোবাতে না চ!ই।

কিন্ত থেকে বেরিয়ে আসে যে, বাশিয়া ফ্ডোরেশনের জন্য প্রচেষ্টা চালানো অবিবেচনাপূর্ণ হবে, জীবনে প্ররুত বাস্তব ঘটনাসমূহ দ্বাবা অন্তহিত হওয়াই হবে তার নিয়তি

দেলো নারোদ1 ১৭৭৬ সালের মাকিন যুঝ বাষ্ট্রেব অভিজ্ঞতা রাশিয়ায় পুনরাবৃত্তি করবাৰ প্রস্ত/ব দিচ্ছে কিন্তু ১৭৭৬ সালেব আমেরিকা আজকের রাশিয়ার মধ্যে এমনকি কোন দুববত্তাঁ সাদৃশ্তও আছে কি?

সেই সময় যুক্তরাষ্ট্র ছিল ক্বতন্ত্র উপনিবেশসমূহেব একটি সমষ্টি, তাদের পর- স্পরের মধ্যে সযোশ ছিল ন' অন্ততঃ একটি কনকেডভারেশনেৰ রূপে স'যোগ- স্থত্রেআবদ্ধ হতে তাদের ছিল অতিপ্রায়। এবং সেই অভিপ্রাষ ছিল সম্পূর্ণ ত্বাভাবিক। কিন্ত আজকের দিনের রাশিখার পবিস্থিতি কি কোনরূপে তাব অনুরূপ? অবশ্ঠই না! প্রত্যেকের নিকট টা] স্পষ্ট যে, রাশিয়ার অঞ্চলগুলি (নীমাস্ত জেলাসমূহ ) অর্থনৈতিক রাজনৈতিক বন্ধনের দ্বারা সেণ্টাল (কেন্দ্রীয়) রাশিয়ার সঙ্গে সংযোগমুজে আবদ্ধ, রাশিযা যত বেশি গণতান্ত্রিক হবে, এই বন্ধনসমূহ তত বেশি জোরদার হুবে।

তা ছাড়া, আমেরিকায় একটি কনফেডারেশন বা ফেডারেশন প্রতিষ্ঠা করতে উপনিবেশগুলি, যাদের পরম্পরের মধ্যে কোন সংযোগ ছিল না, তাদের এঁক্যবন্ধ করার প্রয়োজন হয়। এবং তা ছিল যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক অগ্রগতির স্বার্থে। কিন্তু রাশিয়াকে একটি ফেডারেশনে পরিণত করার জন্ত অঞ্চলগুলির পরস্পরকে সংযোগকারী আগে থেকেই বিগ্মান, অর্থনৈতিক রাজনৈতিক বদ্ধনসমূহকে

ওক

ভাঙবার প্রয়োজন হবে; তা হবে পুরোদস্তর বোকামির কাজ এবং প্রাতি- ক্রিয়াশীল।

সর্বশেষে, আমেরিকা (কানাডা স্থইজারল্যাণ্ডের মতো ) ভৌগোলিক সীমারেখার ছার! বিভিন্ন রাজ্যে (ক্যাণ্টন) বিভক্ত, জাতিগত সীমারেখার দ্বারা নয়। জাতিগত গঠন নিবিশেষে, গুপনিবেশিক সম্প্রদায়সমূহ থেকে রাষ্ট্রগুলি উদ্ভূত হয়েছিল। মান যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক ডজন রাষ্ট্র আছে। কিন্ধ জাতি- গত গোঠী আছে মাত্র মাত বা আটটি। হুইজারল্যাণ্ডে ২৫টি ক্যান্টন ( অঞ্চল ) আছে, কিন্তু জাতিগত গোষ্ঠী আছে মাত্র তিনটি রাশিয়ায় সেরকম নয় রাশিয়ায় যাদের অঞ্চল বলে, যাদের, ধর! যাক, স্বায়ত্ুশাস্নের অধিকারের গুয়োজন ( ইউক্রাইন, ট্রান্সককেশিয়া, সাইবেরিয়া, তুকিস্তান ইত্যাদি) তারা উরাল অঞ্চল বা ভল্গা অঞ্চলের মতো! ভৌগোলিক অঞ্চল নর , তারা রাশিয়ার স্বনিদিষ্ট অংশ, তাদের প্রত্যেকেরই রয়েছে জীবনযাজ্রার একটি স্থনির্দি্ ধরন, আছে স্থনিদিষ্ট (অ-রুশ ) জাতিগত গঠন সংবলিত একটি জনসংখ্য। | ঠিকঠিক এই কারণেই আমেরিকা অথবা স্থইজারল্যাণ্ডে বাষ্ট্রগুলির স্বায়ত্ুশাসনের অধিকার ( অথবা কেডারেশন ) জাতীয় সমশ্যার সমাধান (বস্ততঃ এট! তার উদ্দেশ্তও নয় !) হওয়া দুরে থাক, এই প্রশ্নটি এমনকি উত্থাপনও করে না। কিন্ত রাশিয়ায়, যথাযথভাবে জাতীয় সমস্যা উত্থাপন করে তা সমাধান করার জন্তই অঞ্চলগুলির স্বায়ত্তশাসনের অধিকার ( অথবা! ফেডারেশন ) প্রস্তা- বিত হয়, যেহেতু রাশিয়া অঞ্চলগুলিতে বিভক্ত জাতিগত সীমারেখার দ্বারা

এটা কি স্ম্পষ্ট নয় যে, ১৭৭৬ সালের যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বর্তমানের রাশিয়াকে এক করে দেখা কৃত্রিম বোকামিপূর্ণ ?

এট! কি স্বস্পষ্ট নয় যে, রাশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রবাদ জাতীয় সমস্যার সমাধান করবে না, এবং করতে পারে না, ইতিহাসের চাকা পেছনে ঘোরাবার অসার বল্পনাপূর্ণ প্রচেষ্টার দ্বারা তা শুধু জাতীয় সমস্যায় তালগোল পাকাবে, তাকে জটিল করে তুলবে ?

না, ১৭৭৬ সালের আমেরিকার অভিজ্ঞতা রাশিয়ায় পুনরাবৃত্তি করার প্রস্তাব কোনক্রমেই কার্ধকর হবে না। উত্তরণগত আধা উপায়, ফেডারেশন, গণতন্ত্রের শ্বার্থসাধন করে না এবং করতে পারে না।

জাতীয় সমস্যার সমাধান যেমন মৌলিক চূড়াস্ত হবে, তেমনি হবে তা! কার্ধকর, অর্থাৎ £

৩৯

(১) রাশিয়ার কতকগুলি অঞ্চলে বেসরকারী জাতিসমূহ, যারা খণ্ড কাঠামোর মধ্যে অবস্থান করে না বা অবস্থান করবার অভিলাষী নয়, তাদের বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবার অধিকার;

(২) যে অঞ্চলগুলি নির্দিষ্ট জাতিগত গঠন সংবলিত অখণ্ড কাঠামোর মধ্যে অবস্থান করে, সমরূপ শাসনতান্ত্রিক বিধিব্যবস্থা' সহ একমাত্র অথণ্ড রাষ্ট্রের কাঠামোর মধ্যে তাদের রাজনৈতিক শ্বায়ত্ুশাসনের অধিকার

এই পথেই, একমাত্র এই পথেই, রাশিয়ায় অঞ্চলগুলির সমস্যার সমাধান করতে হবে ।*